Ticker

6/recent/ticker-posts

Ads

হুন্ডি ব্যবসা কেন এত জনপ্রিয়? | Why Hundi business is So Popular ? | Hundi vs Banking Channel

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের প্রবাসী রয়েছে যারা বিভিন্ন কাজে কর্মরত অবস্থায় রয়েছে। সেখান থেকে প্রতি বছর কয়েক বিলিয়ন ডলার তারা বাংলাদেশের পাঠাচ্ছে। যেগুলোর অনেকটাই অবৈধ পথ বা হুন্দি ব্যবসার হাত ধরে এসে থাকে। 2021-22 অর্থ বছরে বাংলাদেশে লিগ্যাল ওয়ে বা বৈধ পথে রেমিটেন্স এসেছে 21 বিলিয়ন ডলার অপরদিকে আবার ধারণা করা হচ্ছে 20 থেকে 21 বিলিয়ন ডলার এসেছে অবৈধ পথ বা হুন্দি ব্যবসার হাত ধরে। বেশির ভাগ দেশের মতো বাংলাদেশের সরকার হুন্দি ব্যবসার মাধ্যমে অর্থ বা টাকা পয়সা লেনদেন বন্ধ করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। এখন আপনাদের একটি বিষয় জানার একটা আগ্রহ জন্মাতে পারে আর সেটি হল , হুন্দি ব্যবসা কেন এততা জনপ্রিয় ? আর সেই বিষয়গুলোকেই আপনাদের মাঝে আলোচনা করা হবে আর এখান থেকেই আপনারা খুব সহজে বুঝে নিতে পারবেন হুন্দি ব্যবসা এখনো কেন এতটা জনপ্রিয় ? ( ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবাসী আয় )



হুন্ডি ব্যবসা কেন এত জনপ্রিয়?




হুন্দি ব্যবসা কেন এততা জনপ্রিয় বিশ্বজুড়ে ?

 

টাকা পয়সা লেনদেন করার জন্য সাধারণ মানুষ অবশ্যই সহজ পদ্ধতি বেছে নিবে এমনটাই কিন্তু স্বাভাবিক। হুন্দি ব্যবসা লেনদেন করার জন্য অবৈধ বা আনলিগেল একটি পথ‌। অবৈধ পথ হওয়া সত্ত্বেও হুন্দি ব্যবসা কেন এততা জনপ্রিয় ? সেই বিষয়গুলোকে আপনাদের মাঝে সারিবদ্ধ বা পয়েন্ট আকারে তুলে ধরা হল আপনাদের বোঝার সুবিধার্থে। ( হুন্দি ব্যবসা কেন এতটা জনপ্রিয় ?)

1/ প্রবাসী যারা রয়েছে তারা মূলত তাদের ইনকাম করা টাকাগুলো দেশে পাঠানোর জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে হুন্দি ব্যবহার করে থাকে। এক্ষেত্রে সে বিভিন্ন হুন্দি এজেন্টকে দিয়ে দেয় এবং কোথায় টাকা দিতে হবে সে এড্রেস দিয়ে দেন। হুন্দি এজেন্ট তার দেশে থাকা এজেন্টকে জানায় এবং তারা সরাসরি গন্তব্য স্থানে টাকা পৌঁছে দেয়। হুন্দি ব্যবসাটি মূলত তিনটি স্তরে সম্পূর্ণ হয়ে থাকে। হুন্দি এজেন্ট সচরাচর পরিচিত কেউ হয়ে থাকে। 

2/ আবার অনেক সময় প্রবাসীদের কাছে টাকা পাঠানোর জন্য বা বিভিন্ন প্রোডক্ট ইমপোর্ট এর জন্য টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে মেইন ব্যাংক বা মোবাইল ব্যাংকিংয়ে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়। এছাড়া ও সেখানে বিভিন্ন ধরনের ডকুমেন্টের প্রয়োজন হয় থাকে যেগুলো সাধারণ মানুষের কাছে অনেকটাই বিরক্তি মনে হয়ে থাকে আর যার কারণে তারা হুন্দি ব্যবসার হাত ধরে টাকা লেনদেন করে সেখানেই নির্ধারিত কোন ডকুমেন্টের প্রয়োজন হয় না। যার কারণে হুন্দি ব্যবসার জনপ্রিয়তা অনেক বেশি। 

3/ বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন প্রবাসীদের মাধ্যমে বাংলাদেশ 51% রেমিটেন্স বৈধ বা লিগেল পথে আসলেও বাকি 49% আসে অবৈধ বা হুন্দি ব্যবসার হাত ধরে। তার কারণ হলো ব্যাংকে টাকা পাঠানোর মাধ্যমে টাকা গ্রহণ করা অনেকটা সময় সাপেক্ষ হয়ে পড়ে কিন্তু অপরদিকে হুন্দি ব্যবসার মাধ্যমে টাকা পাঠানো এবং টাকা গ্রহণ করা অনেকটাই সহজ এবং দ্রুত টাকা পাওয়া যায়। এসব কারণগুলোর জন্যই কিন্তু হুন্দি ব্যবসা অনেকটা জনপ্রিয় অনেক মানুষের কাছে।

4/ হুন্দি ব্যবসার জনপ্রিয়তা এতটাই বেশি যে 2019-20 অর্থ বছরের লিগ্যাল পথে রেমিটেন্সের এর পরিমাণ  ছিল 24 বিলিয়ন ডলারের কিছু বেশি এবং এটার পরিমাণ তার পরবর্তী বছরে কমে দাঁড়ায় 21 বিলিয়ন ডলারে। তাহলে এতে করে বুঝাই যাচ্ছে হুন্দি ব্যবসা বা অবৈধ পথে টাকা পয়সা লেনদেন অনেকটাই জনপ্রিয়তা লাভ করতে পেরেছে। 

5/ ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা পয়সা কিছুটা কম পাওয়া যায় অর্থাৎ ডলারের রেটের পরিমাণ কিছুটা কম থাকে। আর যদি হুন্দির মাধ্যমে টাকা পয়সা তাহলে কিছুটা বেশি টাকা পাওয়া যায় যার কারণে প্রবাসী এবং সাধারণ মানুষের কাছে হুন্দির জনপ্রিয়তা ব্যাপক রয়েছে। সাধারণ অর্থে বেশি টাকা পাওয়ার আশায় মানুষ এই হুন্দি বা অবৈধ পথ বেছে নেবে লেনদেন করার জন্য এটাও কিন্তু স্বাভাবিক বিষয় হতে পারে। 

6/ এছাড়াও হুন্দি ব্যবসার জনপ্রিয়তার জন্য আরো একটি অন্যতম কারণ হলো যারা বিদেশে প্রবাসী রয়েছে তাদের মধ্যে কেউ কেউ অল্প শিক্ষিত, কেউ কেউ শিক্ষিত নয় যার কারণে ব্যাংকিং কার্যক্রম গুলো বা বিভিন্ন ডকুমেন্টগুলো পূরণ করা তাদের পক্ষে অনেকটা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে ‌। অন্যদিকে হুন্দির মাধ্যমে টাকা পয়সা লেনদেন করার জন্য কোন ডকুমেন্ট বা ব্যাংকিং কার্যক্রম পূরণ করার প্রয়োজন হয় না। যার কারণে খুব সহজেই টাকা পয়সা লেনদেন করা যায়। 

7/ এছাড়াও যারা প্রবাসী রয়েছে তাদের বেশিরভাগ পরিবার বা আত্মীয়স্বজন অনেকেই গ্রাম অঞ্চলে বসবাস করে যার কারণে টাকা উঠানোর জন্য ব্যাংকিং কার্যক্রম গুলো বা চেক বই লেখা থেকে শুরু করে লাইনে দাঁড়ানো তাদের পক্ষে অনেকটাই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে আবার অনেকে বুঝেও না অন্যদিকে হুন্দি ব্যবসার মাধ্যমে টাকা পাঠালে হুন্দি এজেন্ট নিজেরাই এসে টাকা দিয়ে যায় এক্ষেত্রে কিন্তু অনেকটাই ভোগান্তি কম হয় এবং খুব কম সময়ে টাকা পাওয়া যায়। 

8/ হুন্দি ব্যবসার মাধ্যমে লেনদেন করে নেওয়ার জন্য অন্যতম আরো একটি জনপ্রিয় কারণ হলো যারা sounth কোরিয়া, ইরাক বা মালদ্বীপসহ আরো বেশ কয়েকটি দেশগুলোতে অবস্থান করে সেখান থেকে কিন্তু তারা তাদের টাকা গুলো লিগেল পথে চাইলেও পাঠাতে পারেনা। তার কারণ হলো এইসব দেশগুলো থেকে লিগেল ভাবে টাকা পাঠানোর কোন ম্যানুয়েল সিস্টেম নেই। যার কারনে ওখানে প্রবাসীরা হুন্দি ব্যবসার মাধ্যমে লেনদেন করে থাকে বাধ্য হয়ে।

9/ বিভিন্ন দেশের অবস্থানরত প্রবাসীরা আনলিগেল ভাবে আয় করে এমন মানুষের সংখ্যাও কিন্তু কম নয়। অর্থাৎ যাদের ভিসা বা পারমিট নেই। আর যেহেতু তারা আনলিগেল ভাবে টাকা পয়সা ইনকাম করে থাকে সেহেতু বৈধ পথে টাকা পাঠানো বা লেনদেন করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তাদের কাছে থাকে না। যার কারনে মূলতো তারা বাধ্য হয়ে হুন্দি ব্যবসার মাধ্যমে টাকা পয়সা লেনদেন করে থাকে। 

10/ টাকা পাঠানো এবং টাকা গ্রহণ করার জন্য সকলেই সহজ পদ্ধতি বেছে নিয়ে থাকে। হুন্দি ব্যবসার মাধ্যমে খুব সহজে টাকা পয়সা লেনদেন করা যায়। ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা উঠানোর ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের তথ্য দিতে হয় যেগুলো সাধারণ মানুষের কাছে অনেকটা ভোগান্তি বলে মনে হয়। উপরে আলোচিত বিভিন্ন সুবিধাগুলো ছাড়াও বেশ কিছু কারণে প্রবাসীরা টাকা লেনদেন করার জন্য অবৈধ পথ বা হুন্দির মাধ্যম বেছে নেয়। আর এসব কারণগুলোর জন্যই হুন্দির মাধ্যমে টাকা পয়সা লেনদেন অনেকটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। 


উপরের আলোচনায় আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন হুন্দি ব্যবসা কেন এতটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ? আর এই বিষয়ে আপনাদের ব্যক্তিগত কি মতামত রয়েছে সেই বিষয়টি আমাদেরকে জানাতে পারেন কমেন্ট বক্সে কমেন্টের মাধ্যমে। আর্টিকেলে এই তথ্যগুলো নেওয়া হয়েছে সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের উপর ভিত্তি করে। হুন্দি ব্যবসা অনেকটা জনপ্রিয় হলেও আপনার দেশে যদি এই ব্যবসাটি সরকারিভাবে অবৈধ বলে ঘোষণা হয় তাহলে এটা কখনো করবেন না। তার কারণ হলো সরকার যদি তার আইনানুক ব্যবস্থা চালু করে তাহলে কিন্তু আপনাদের অনেক ক্ষতি হতে পারে।


হুন্ডি ব্যবসা সম্পর্কে A to Z জানতে নিচে দেওয়া আর্টিকেল পড়ে দেখুন এখানে ক্লিক করে

Post a Comment

0 Comments