Ticker

6/recent/ticker-posts

Ads

Omega network FULL white paper And road map reviews in Bangla-সবকিছু দেখুন বাংলায়

 বর্তমান সময়ে কে না চায় অনলাইনের মাধ্যমে ঘরে বসে বিনা শারীরিক পারিশ্রম  না করে টাকা উপার্জন করতে। তবে ইতিমধ্যে  মধ্যে আমাদের প্রায় সকলে অনলাইনের মধ্যে এমন একটি এপ চোখে পড়েছে যার মাধ্যমে কিনা আমরা প্রায় সকলেই চাইলে অর্থ উপার্জন করতে পারব।  যেটা মূলত হল ওমেগা নেটওয়ার্কের ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এপ। তবে ওমেগার মাইনিং নেটওয়ার্কের আপডেট বিষয় আমাদের মাঝে চলে এলো আগামী ভবিষ্যতে কোন কোন প্রজেক্ট গুলো নিয়ে আসবে এবং সেখানে আমরা কিভাবে কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে পারব   Roadmap and Whitepaper । তবে দেখে নেওয়া যাক  ওমেগা মাইনিং নেটওয়ার্ক   ক্রিপ্টোকারেন্সি তাদের Roadmap and Whitepaper এর ভিতরে কি কাজগুলো স্টেপ বাই স্টেপ আমাদের মাঝে নিয়ে আসবে যেগুলোতে কাজ করার মাধ্যমে আমরা সফলতার দ্বারপ্রান্তে এগিয়ে যেতে পারব।


Omega network FULL white paper And road map reviews in Bangla-সবকিছু দেখুন বাংলায়


ওমেগা নেটওয়ার্ক কি?

ওমেগা ক্রিপ্টোকারেন্সি কয়েন হল একটি ডিজিটাল সম্পদ যা বিনিয়োগকারীদের ডিজিটাল সম্পদ বিনিময়ের একটি নিরাপদ এবং দক্ষ উপায় প্রদান করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। ওমেগা ক্রিপ্টোকারেন্সি কয়েন একটি উন্মুক্ত, স্বচ্ছ এবং নিরাপদ নেটওয়ার্ক তৈরি করতে সর্বশেষ এই কোম্পানিটি নিজেদের ব্লকচেইন প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে।

তবে আমাদের মাঝে বেশ কিছু মানুষের প্রশ্ন থাকতে পারে যে এই ওমেগা নেটওয়ার্কে আমরা কেন কাজ করব?এই প্রশ্নের কোনও এক-আকার-ফিট-সমস্ত উত্তর নেই, কারণ ওমেগাতে কাজ করার সর্বোত্তম উপায় আপনার ব্যক্তিগত ধৈর্য পরিস্থিতি এবং লক্ষ্য অনুযায়ী কাজ করার  উপর নির্ভর করে আপনাদের সফলতা । যাইহোক, ওমেগাতে কাজ করার কিছু সম্ভাব্য কারণের মধ্যে নিচে বিস্তারিত বিষয় তুলে ধরা হলো ।

1. ওমেগা উচ্চ-মানের টার্নিং পয়েন্টে হলো একটি নেতৃস্থানীয় প্রস্তুতকারক৷

2. ওমেগা গুণমান এবং নির্ভরযোগ্যতার জন্য একটি শক্তিশালী খ্যাতি রয়েছে।

3. ওমেগা স্টক, বন্ড এবং মিউচুয়াল ফান্ড সহ বিভিন্ন ধরনের বিনিয়োগের       বিকল্প অফার করছে।

4. ওমেগা তে আপনারা চাইলে ফ্রিতে মোবাইলের মাধ্যমে মাইনিং করে অর্থ উপাদান করতে পারবেন।

ওমেগা মাইনিং অ্যাপ আসলেই কিরকম সম্পদ?

<<<টাইমপিস এবং ঘড়িতে ওমেগা বিশ্বব্যাপী নেতা। পাটেক ফিলিপ, অডেমারস পিগুয়েট এবং রোলেক্স সহ বিশ্বের সবচেয়ে আইকনিক ব্র্যান্ডগুলির সাথে অংশীদারিত্বের বা পার্টনারশিবের একটি দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে এই ওমেগা কোম্পানিটির ৷ ওমেগা বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় কিছু প্রযুক্তি কোম্পানির সাথেও পার্টনার সিব্বা অংশীদারিত্ব করেছে, যেমন অ্যাপল এবং স্যামসাং। এতে আমরা বলতে পারি বিশ্বের জনপ্রিয় কোম্পানিগুলোর সাথে ওমেগা কোম্পানির পার্টনারশিপ রয়েছে সে কারণে এই কোম্পানিটির আগামীর ভবিষ্যৎ অনেক উজ্জ্বল এটা আমরা বলতেই পারি।

<<<ওমেগা এবং এই ব্র্যান্ডগুলির মধ্যে অংশীদারিত্বের ফলে ইতিহাসের সবচেয়ে আইকনিক টার্নিং পয়েন্ট  হয়েছে এই কোম্পানিটির । উদাহরণস্বরূপ, ওমেগা স্পিডমাস্টার প্রফেশনাল পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় ঘড়িগুলির মধ্যে একটি, এবং এটি প্রায়শই মহাকাশ মিশন এবং অলিম্পিক গেমসের মতো বড় ইভেন্টগুলিকে স্মরণ করতে ব্যবহৃত হয়। এই কোম্পানির সাথেও ওমেগা কোম্পানিটির রয়েছে বিশেষ পার্টনারশিব‌।

ওমেগার ভালো বৈশিষ্ট্য গুলো হলো

1. OMEGA এর পণ্যগুলিতে পুনর্ব্যবহৃত সামগ্রীর ব্যবহার সহ টেকসই অনুশীলনের জন্য একটি দৃঢ় প্রতিশ্রুতি রয়েছে।

2. ওমেগা বিভিন্ন ধরণের মডেল অফার করে যা পুরুষ এবং মহিলা উভয়ের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

***হোয়াইটপেপার ও রোড ম্যাপ হল ব্যবসায়িক পরিকল্পনার একটি যেকোনো ICO প্রকল্পের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। পরিকল্পনা হ'ল ভবিষ্যতের কোন ক্রিয়া সম্পর্কে আগাম চিন্তাভাবনার একটি সংগঠিত প্রক্রিয়া। এর অর্থ পরিকল্পনার প্রস্তুতি, অর্থাত্ ধারাবাহিক ভাবে  যা সাংগঠনিক লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করবে। সংগঠন, নিয়ন্ত্রণ, অনুপ্রেরণা & নেতৃস্থানীয় এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণ এছাড়াও  আরো  পাঁচটি পরিচালনা কার্যক্রমে পরিকল্পনার সুরুর উদ্বেগ গ্রহণ করা হয়েছে ।

পরিকল্পনা হ'ল একটি ভবিষ্যত-ভিত্তিক ক্রিয়াকলাপ যা একটি পরিবার, একটি বন্ধু গ্রুপ, একটি কলেজ, সরকার এবং সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণভাবে ব্যবসায়ের ব্যবস্থাপনার নিয়মিত সিদ্ধান্ত গ্রহণে ঘটে। যেকোনো সমস্যা   এড়ানোর জন্য কোন পদক্ষেপটি আগে বা পরে করা উচিত তা  করার জন্য এটির বিচারের দক্ষতা প্রয়োজন।

পরিকল্পনার লক্ষ্য নির্ধারণ করার জন্য হোয়াইট পেপার বা রোড ম্যাপ এর প্রয়োজন রয়েছে । যাতে যে কোন কোম্পানি আরও সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে সে কাজ টি করেছে আমাদের ওমেগা মাইনিং অ্যাপের কোম্পানিটি।  

হোয়াইট পেপারে বা রোড ম্যাপে ওমেগা নেটওয়ার্ক কোন কোন বিষয়গুলো এনেছে আসেন আমরা বিস্তারিত গুলো জেনে নেই।

* March 2023 seed ifo opening price ;$ 0,11সেন্ড তবে

*এপ্রিল ২০২৩ এ আবারো  প্রাইভেট সেল চলবে 17 সেন্ড করে দেখেন এখানে প্রতিটা কয়েনের প্রাইজ থাকবে 17সেএন্ড এপ্রিল ২০২৩ সালে । তাহলে বেশ কিছুদিন পরেই তারা প্রাইভেট ওপেনিং সেল রেখেছে যেটার রেট থাকবে হল 17সেএন্ড করে। তবে প্রতিটা কয়েন্টের প্রাইস যদি 17 সেএন্ড হয় শুরু থেকেই তাহলে বুঝতেই পারতাছেন আপনার কয়েনের মূল্য ভবিষ্যতে আরো অনেক বেশি হবে এ কয়েন গুলোর প্রাইস ।

*এবার মেয়ে ২০২৩ দেখেন আবারো  সেল শুরু হবে যেখানে থাকছে TGE / IDO ওপেনিং প্রাইস $০,32সেন্ড। যেটা আমরা খুব সহজে বলতে পারি প্রত্যেকটি উমেগার প্রাস হবে ৩২  সেএন্ড করে। যেখানে মানুষ মাইনিং ছাড়াই কয়েন গুলো কিনতে পারবে । বর্তমানে মাইনিং করে কয়েন যোগানোটা বেশ কঠিন হয়ে গেছে হয়ে তবে আপনি যদি রেফারেল ব্যবহার করে একাউন্ট খুলেন তাহলে আপনি কিন্তু ফ্রিতে 20 টি কয়েন আর্নিং করতে পারবেন আর অপরদিকে আপনার মাইনিং স্পিডো বৃদ্ধি পাবে  । তবে এখানে একটি বিষয় হলো ৩২সেএন্ড হচ্ছে শুধু  IDO এর প্রাইস। তবে যারা কয়েন কিনতে চান তারা অবশ্যই নিজ দায়িত্বে ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিযবেন।


*এখান থেকে আপনারা যারা মাইনিং করবেন তারা সর্বোচ্চ ২৭ বছর পর্যন্ত প্রতি মাসে মাসে পেমেন্ট পাবেন। যতগুলো কয়েন মাইনিং করবেন সেখান থেকে ২৫% কয়েন আপনাদেরকে কোম্পানিটির লঞ্চ হওয়ার সাথে সাথে প্রেমেন্ট দিয়ে দেওয়া হবে । তবে বাকি যেই ৭৫% কয়েন থাকবে সেগুলো তারা ২৭ বছর পর্যন্ত আস্তে আস্তে প্রতিমাসে আপনাদেরকে দেবে। এক্ষেত্রে বলা যায় আপনারা এখান থেকে লাইফ টাইম ইনকাম করতে পারবেন।

*ডিসেম্বর ২০২৩ সালে মাইনিং কয়েন For kyc একাউন্ট আনলক হতে চলেছে।  একাউন্ট ভেরিফাই করতে হলে আমরা আমাদের পাসপোর্টের মাধ্যমে খুব সহজেই kyc কমপ্লিট করতে পারব। তবে যাদের পাসপোর্ট নেই তাদেরও দুশ্চিন্তা করার কিছু নেই  কারণ পাসপোর্ট এর পরবর্তীতে তারা এনআইডি কার্ড এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ডের মাধ্যমে kyc বা অ্যাকাউন্ট ভেরিফাই করতে সক্ষম হবে। তবে এখানে একটি বিষয় হলো যাদের পাসপোর্ট থাকবে তারা অতি দ্রুতই kyc কমপ্লিট করতে পারবেন কিন্তু যারা এনআইডি কার্ড এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স এর মাধ্যমে kyc বা একাউন্ট ভেরিফিকেশন করতে চান তাদের একটু দেরি করতে হবে। তবে এই বিষয়গুলো গুরুত্ব সহকারে মনে রাখবেন  Kyc যারা পরিপূর্ণভাবে বা সম্পূর্ণভাবে কমপ্লিট করতে পারবে তাদের একাউন্ট  কয়েন গুলো আস্তে আস্তে আনলক হতে শুরু করবে । আর সেগুলো কে বিক্রি করে আপনারা পকেটে টাকা নিতে পারবেন।

*The second  quarter ২০২৩ সালে যেগুলো নিয়ে তারা কাজ করতেছে
*সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেল 
*টুইটার একাউন্ট
*ফেসবুক একাউন্ট 
*আইফোনের অ্যাপ স্টোরে অ্যাপ আনবে 
*ওম ওয়েব থ্রি 
* কমিউনিটি বৃদ্ধি 
*কোর ফাংশন 
*টেসনেট 
*অডিট করবে
*এমা ইউটিউব এন্ড জুম ইভেন্ট 
*এন এফ টি সোশ্যাল মার্কেট লঞ্চ করবে
*কন্টাক্ট এড্রেস 
*ওমেগা এক্সচেঞ্জ ওয়ালেট
*মাল্টি চেন
*ব্লগ চেন



*The fast  quarter ২০২৪ এ গিয়ে ওম লাঞ্চ পেট  সেটাকে সকলের সামনে নিয়ে আসা হবে।  স্টিকার মার্কেটে লঞ্চ ও করা হবে। তবে ওমেগা কয়েন ক্রয় বিক্রয় করা হবে এবং বার্নিং করা শুরু হয়ে যাবে। ২০২৪ সালের  সেকেন্ড কোয়ার্টারে বিভিন্ন এক্সচেঞ্জ ওয়ালেট গুলোর সাথে পার্টনারশিপ করা হবে উমেগা কোম্পানিটির সাথে। তার সাথে  Pancake Swap, Unisyap ,সহ আরো  ইত্যাদি জনপ্রিয় এক্সচেঞ্জ গুলোর সাথে এই ওমেগা নেটওয়ার্ক কোম্পানি পার্টনারশিপ করতে যাচ্ছে ।


*২০২৫ সালে ৩ য় কোয়ার্টারে ওমেগা নেটওয়ার্কের কোম্পানির মূল কার্যক্রম শুরু হবে। অর্থাৎ মার্কেটিং এর কার্যক্রম গুলো শুরু হবে। আর এই ২০২৫ সালেই আপনারা এই ওমেগা কয়েন গুলোকে অফিসিয়াল ভাবে বায় & সেল করতে পারবেন। তবে আমরা এই হোয়াইট পেপার এবং রোড ম্যাপ এর মাধ্যমে বুঝতে পারলাম যে বিশ্ববাজারে তারা চলে আসবে ২০২৫ সালের ভিতরে।

*এই কোম্পানিটির বুষ্টার মাইনিং স্পিড রেট টা যদি আমরা  দেখি যেখানে থাকছে ০.11 এবং অতি দ্রুতই এটিও কিন্তু পরিবর্তন হতে চলেছে
ভাই বুঝতেই পারতাছেন এটা কিন্তু আরও একটি ধামাকাদার বিষয় হতে যাচ্ছে।তবে যারা একেবারে শুরু থেকে মাইনিং করা শুরু করেছে তারা হয়তো অনেক বহুদূর এগিয়ে গেছে তবে আমরা যারা বর্তমান মাইলিং করতে চাচ্ছি তাদের ও  বহুদূর এগিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে প্রথম থেকে যেভাবে মাইনিং করার ফলে কয়েন দিয়েছে এখন তার থেকে আরও স্লো পরিমাণে কয়েন দিচ্ছে তবে এখানে টেনশন করার কোন বিষয় নেই বন্ধুরা আমরা যদি মোটামুটি ভালোভাবে কাজ করি তাহলে আমরাও হয়তো বেশি বেশি করেন সংরক্ষণ করতে পারব। তবে বন্ধুরা যারা প্রথমে ওমেগা নেটওয়ার্ক এ মাইনিং করা শুরু করেছে তাদেরকে আমরা এখন মাইনিং করে তাদের মাইনিং ইস্পিডে পৌঁছাতে পারবো না  আবার যারা আরো দেরি করে উমেগা মাইনিং এ জয়েন করবে  তারা তখন আবার আমাদের থেকে বেশি মাইনিং গতি পাবে না । তাই বলছি  বন্ধুরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব  ওমেগা নেটওয়ার্ক এর সাথে জয়েন হয়ে যান কারণ বর্তমানে এখানে জয়েন হওয়ার ফলে আমাদের ফ্রিতে দিচ্ছে 20 টি কয়েন। তবে আর কিছুদিন পর হয়তো সেটা কমে দশ টি কয়েনে চলে আসবে। তবে আপনি যদি 20 টি কয়েন হারাতে না চান এবং মাইনিং এর স্পিড বেশি হারাতে না চান তাহলে অবশ্যই আজ থেকে জয়েন হয়ে যেতে পারেন ওমেগা নেটওয়ার্ক মাইনিং এপ টিতে।

আমরা Omega network এর রোড ম্যাপ বা হোয়াইট পেপার থেকে যেগুলো বিষয় জানতে পারলাম সেটা হল এখানে যদি আমরা ধৈর্য সহকারে কাজ চালিয়ে যেতে পারি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তাহলে এক একজন মেম্বার ফ্রিতেই এখান থেকে মোবাইলের মাধ্যমে এক থেকে দুই লাখ কিংবা পাঁচ থেকে দশ লাখ টাকা কিংবা তারও বেশি ইনকাম করে নিতে পারব অর্থাৎ আপনার অ্যাকাউন্টের স্ট্যাটাস অনুযায়ী আপনি টাকা উপার্জন করতে পারবেন যাইহোক যদি আপনি এখানে একাউন্ট খুলতে চান এখানে ক্লিক করলে ইউটিউব চ্যানেলে নিয়ে যাবে ওখান থেকে ভিডিওটি দেখে অ্যাকাউন্ট খুলে নিন এবং আমাদের কমিউনিটিতে থাকুন সর্বশেষ ইনকাম আপডেট গুলো পাওয়ার জন্য আর শেয়ার করে বন্ধুদের দেখার সুযোগ করে দিতে একদমই ভুলবেন না।

Post a Comment

0 Comments