Ticker

6/recent/ticker-posts

Ads

Jaa LifeStyle এত টাকা ইনকাম কিভাবে দিবে ?

 অনলাইন ইনকামের কথা শুনলে আমাদের মাঝে অনেকে আছি যে জেনে না বুঝে ঝাঁপিয়ে পড়ি জানার চেষ্টাও করি না আদৌ কি ওই ওয়েবসাইটটি থেকে এত পরিমান ইনকাম করা যাবে কিনা সেটা আসলে ভেবেও একবারও দেখিনা । অনেক অনলাইন ইনকাম ওয়েবসাইট আমাদের সাথে প্রতারণা করে দেখায় মুরগি পরে খাওয়ায় ডাইল এখন কথা হচ্ছে জা লাইফস্টাইল ওয়েবসাইট কি ওই ধরনের ফেক ওয়েবসাইটের দলে ?   

লন্ডন থেকে পরিচালিত জা লাইফস্টাইল এতো ইনকাম মানুষকে কিভাবে দিবে এই নিয়ে শুরু হয়েছে সবার মনে সন্দেহ আসলেই কি জা লাইফস্টাইল যে ইনকাম গুলো মানুষকে দিবে বলছে কাজের বিনিময় সেগলো কি দেওয়া সম্ভব ? জানবো আজকের এই আর্টিকেলটিতে ইনশাআল্লাহ ।


Jaa LifeStyle এত টাকা ইনকাম কিভাবে দিবে ?



জা লাইফস্টাইল আমাদের লোভে ফেলছে না তো ?


এ কথাটা একেবারে ফেলে দেওয়ার মত না কারণ যেহেতু তারা লোভনীয় ইনকাম দিবে বলতাছে এগুলো না দিয়ে যদি তারা চলে যায় তাহলে সাধারণ মানুষের স্বপ্নগুলো ভেঙ্গে যাবে এটি কিন্তু স্বাভাবিক । পূর্বে যে কোম্পানিগুলো চলে গেছে তারা কিন্তু আইডি একটিভ টাকার বিনিময় করিয়ে তারপরে টার্গেট পূরণ হলেই চলে গেছে সাধারণ মানুষকে ঠকিয়ে । জা লাইফস্টাইল কিন্তু তাদের টার্গেট পূরণ হওয়ার পরেও এখন কথা ও কাজে মিল রেখে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে নিচ্ছে । এখন পর্যন্ত বুঝা যাচ্ছে না জা লাইফস্টাইল আসলেই কি মানুষের স্বপ্ন পূরণ করতে পারবে কিনা সেটা সময়ই বলে দেবে । এইতো ছয় সাত মাস আগের কথা ইউকে টাক্স নামে একটি সাইট সকলের সাথে প্রতারণা করে চলে গেছে সেই ব্যথা এখনো মানুষের মনে রয়ে গেছে এজন্যে আসলে এই ধরনের সন্দেহ  জা লাইফস্টাইল এর দিকে এমনটাই বলছেন অনেকে । তবে এটাও ঠিক ইউকে ট্যাক্স যখন অনলাইন দুনিয়ায় আবির্ভাব ঘটে তখন তারা বলছিল লন্ডনভিত্তিক ওয়েবসাইট তারা কিন্তু পরে জানা গেল সেটি বাংলাদেশ থেকে পরিচালিত হয়েছিল ।



এই কোম্পানি মানুষকে এত টাকা ইনকাম কিভাবে দিবে ?


এটির একটি সুন্দর ব্যাখ্যা রয়েছে অর্থাৎ উন্নত দেশে কিন্তু এত কম মূল্যে লেবার বা ওয়ার্কার কখনো পাওয়া যায় না । যেমন ইউরোপ কান্ট্রি গুলোতে বা উন্নতশীল দেশগুলোতে ।  তবে এশিয়ার ভিতরে অথবা যে রাষ্ট্রগুলো কম উন্নতশীল রয়েছে তারাই কিন্তু এ কাজগুলো বেশি করে থাকেন । এই কম উন্নতশীল দেশের লোকদেরকেই তারা বেশি টার্গেট করে থাকেন বা ওয়ার্কার হিসেবে হায়ার করে থাকেন যাতে করে কম টাকায় কাজটি করিয়ে নিতে পারেন । উদাহরণস্বরূপ বিষয়টা বুঝে নেওয়া যাক যেমন একটি ওয়েবসাইট মোটামুটি মানের বানাতে গেলেও ওদের কম করে হলেও 200 থেকে 300 ডলার দিতে হয় যেটা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় 16 থেকে 24 হাজার টাকা হয়ে যায় । যেহেতু বাংলাদেশ ইন্ডিয়া পাকিস্তান সহ অন্যান্যকম কম উন্নতশীল দেশগুলোতে এ টাকা গুলো অনেক কিছু কিন্তু উন্নতশীল দেশগুলোতে এই ডলার বা টাকাগুলো কিন্তু তেমন কিছু না । এ কারণেই মূলত এশিয়ার ভিতরে ফ্রিল্যান্সিং কাজ গুলো বেশি হয়ে থাকে ওই যে কম টাকায় ওয়ার্কার পাওয়া যায়়। বর্তমান রিপোর্ট অনুযায়ী ফ্রিল্যান্সিং এর দিকে ইন্ডিয়া এক নাম্বার বাংলাদেশ দুইনাম্বার পাকিস্তান তিন নাম্বার অবস্থানে রয়েছে । এবার হয়তো অনেকে বিষয়টা উপলব্ধি করতে পারছেন কিছুটা হলোও । এইবার বোঝেন মাত্র 1 ইউরো দিবে একটি ফ্রি মেম্বার কে এবং একটিভ মেম্বার কে তাড়া দেবে মাত্র 2.70 ইউরো যেটা বাংলাদেশ ইন্ডিয়া পাকিস্থানে আসলে আমরা মনে করি অনেক টাকা । আসলে উন্নতশীল দেশগুলোতে এগুলো তেমন কোন টাকা বা ইরোই না । যেহেতু 1 ইউরো সমান সমান বাংলাদেশ এ 100 টাকা হয়ে যায় । যারা আইডি একটিভ করে কাজ করবে তাদেরকে 2.70 ইউরো বা 270 টাকা করে প্রতিদিন দেবে এবং যারা ফ্রি তে কাজ করবে তাদেরকে প্রতিদিন ১ ইউরো করে দিবে । তবে বলে রাখা ভালো এগুলো কিন্তু এমনি এমনি দিবে না অর্থাৎ অ্যাড দিবে কোম্পানি সেই গুলো দেখে এই পরিমাণ ইনকাম হবে আশা করি সকলে বিষয়টা আপনারা ক্লিয়ার ভাবে বুঝতে পেরেছেন ।


জা লাইফস্টাইল এর কার্যক্রম কি ইউটিউব ফেসবুকের মত ?


বলতে গেলে অনেকটা ফেসবুক ইউটিউব এর মতনই তাদের কার্যক্রম তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে ইউটিউব ফেসবুক থেকে তাদের কার্যক্রম একটু ভিন্নতাও রয়েছে বিষয়টা একটু বুঝিয়ে বলি । যেমন কোন কোম্পানি যখন গুগলে বা ফেসবুকে তাদের প্রোডাক্ট এর বিজ্ঞাপন দেন একটা নির্দিষ্ট বাজেটের ভিতর রেখে তখন গুগল বা ফেসবুক কি করে সেই বাজেটের টাকা থেকে অর্ধেক তারা নিজেরা রেখে দেন । বাকি অর্ধেক টাকা যারা কন্টেন্ট তৈরি করে তাদের মাঝে দিয়ে দেন । যা লাইফ স্টাইল কি করছেন নিয়মটা কে একটু ঘুরিয়ে অর্থাৎ যখন কোন কোম্পানি যা লাইফ স্টাইলে অ্যাড দিবে সেগুলো প্রচার করার জন্য । জা লাইফস্টাইল এ যারা গ্রাহক বা এড ভিউ করে থাকেন তাদের কে অর্ধেক পরিমাণ টাকা দিয়ে থাকেন পার্থক্যটা এখানেই গুগোল ফেসবুকে এড দিলে তারা অর্ধেক পরিমাণ টাকা রেখে কন্টেন যারা তৈরি করেন তাদেরকে বাকি অর্ধেক দেন । কিন্তু যারা কনটেন্টগুলো দেখেন বা বিজ্ঞাপন দেখেন তারা কোনো অর্থ পান্না । আর যেহেতু জা লাইফ স্টাইলে এ কোন কন্টেন তৈরি করার মতো কেউ নেই সেহত যারা বিজ্ঞাপনগুলো জা লাইফস্টাইল ওয়েবসাইট থেকে দেখবে তাদের মাঝে তারা অর্ধেক অর্থ প্রদান করে থাকবে এই হল গিয়া সিস্টেম ।


Jaa LifeStyle থেকে সত্যিই কি টাকা ইনকাম করা সম্ভব ? সম্পূর্ণটা জানার জন্য এখানে ক্লিক করুন

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ